২১ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৬ আশ্বিন, ১৪২৮

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি) এর অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি পেলেন চৌদ্দগ্রামের কৃতিসন্তান কাজী ফরিদ

মুহা. ফখরুদ্দীন ইমন: বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি) এর অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি পেয়েছেন কৃষি অর্থনীতি ও গ্রামীণ সমাজবিজ্ঞান অনুষদভুক্ত গ্রামীণ সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক, কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের কৃতিসন্তান কাজী শেখ ফরিদ। ১০ জুলাই ২০২১ তারিখে অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেটের ৩২০তম সভার সিদ্ধান্তক্রমে আজ সোমবার (১২ জুলাই) বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাঁর এই পদোন্নতির আদেশ প্রদান করেন।

অধ্যাপক শেখ ফরিদ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অর্থনীতি ও গ্রামীণ সমাজবিজ্ঞান অনুষদভুক্ত গ্রামীণ সমাজবিজ্ঞান বিভাগ থেকে মাস্টার্সে এ+ পেয়ে প্রথম শ্রেণীতে প্রথম স্থান অর্জন করে ২০০৬ সালের ডিসেম্বর মাসে উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রামীণ সমাজবিজ্ঞান বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। পরবর্তীতে তিনি ২০০৮ সালে সহকারী অধ্যাপক ও ২০১৫ সালে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি পান। সর্বশেষ ১০ জুলাই ২০২১ সালে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের ৩২০তম সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক ২০২০ সালের ২৭ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর সাপেক্ষে তিনি গ্রামীণ সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি পান।

উল্লেখ্য, এখন পর্যন্ত এই বিভাগে মাস্টার্সে একমাত্র তিনিই এ প্লাস পেয়েছেন। এই কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফলের জন্য তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের গোল্ড মেডেল অ্যাওয়ার্ড পেয়েছিলেন।

উচ্চশিক্ষা, গবেষণা, প্রকল্প পরিচালনা ও ট্রেনিং প্রোগ্রামের অংশ হিসেবে অধ্যাপক শেখ ফরিদ নেদারল্যান্ডসসহ ইউরোপ ও এশিয়ার বিভিন্ন দেশ ভ্রমণ করেন। তিনি উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার জন্য নেদারল্যান্ডস সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়, অস্ট্রেলিয়ান সেন্টার ফর ইন্টারন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল রিসার্চ, ও কাউন্সিল অব ইউরোপের ইয়ুথ ডিপার্টমেন্টসহ বিভিন্ন দাতা সংস্থার স্কলারশিপ লাভ করেছেন। দেশ-বিদেশের বিভিন্ন সেমিনার-কনফারেন্সে তিনি গবেষণা প্রবন্ধ উপস্থাপন করেছেন। এছাড়াও তার লেখা গবেষণা প্রবন্ধ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। অভিবাসন, অভিবাসী ও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর আর্থসামাজিক উন্নয়ন তাঁর গবেষণার মূল বিষয়।

ইতিমধ্যে তিনি ২০১৭-২০১৯ সালে ২ বছরের জন্য সুনাম ও দক্ষতার সাথে গ্রামীণ সমাজবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তাছাড়াও তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হলের হাউস টিউটরসহ বিভিন্ন সংস্থায় অন্যান্য দায়িত্ব পালন করেন।

অধ্যাপক শেখ ফরিদ বিভিন্ন গবেষণা জার্নালের ম্যানেজিং এডিটর ও এডিটোরিয়াল বোর্ডের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন এবং জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গবেষণা জার্নালের প্রবন্ধের রিভিউয়ার হিসেবেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন। তিনি দেশের বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় কলাম লেখক হিসেবেও পরিচিতি লাভ করেছেন।

অধ্যাপক কাজী শেখ ফরিদ কুমিল্লা জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ঐতিহ্যবাহী করপাটি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম কাজী বেছু মিয়া ও মাতা মনোয়ারা বেগম। তাঁর স্ত্রী একজন চিকিৎসক হিসেবে বিসিএস (স্বাস্থ্য) ক্যাডারে কর্মরত আছেন। দাম্পত্য জীবনে তাঁদের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। তাঁর একমাত্র ভাই ও ভাবি যথাক্রমে রাষ্ট্রায়ত্ত জনতা ও অগ্রণী ব্যাংকে সিনিয়র অফিসার হিসেবে কর্মরত আছেন।

অধ্যাপক হিসেবে সম্মানজনক এই পদোন্নতিতে তিনি তাঁর প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক অনেক মর্যাদাপূর্ণ একটা পদ, অনেক বড় একটা দায়িত্ব। কিন্তু বর্তমান ক্ষয়িষ্ণু সমাজে অনেকেই এই পদের মর্যাদা ধরে রাখতে পারছেন না। আামি সবার কাছে দোয়া কামনা করছি, আমি যেন এই পদের সম্মান রক্ষা করতে পারি এবং আমার উপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে পারি। এই পদে থেকে সমাজের মানুষের জন্য বিশেষ করে অবহেলিত ও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন্য আমি সবসময় কিছু করার চেষ্টা করব। এই পর্যায়ে আসতে পারার জন্য আমার মা-বাবাসহ পরিবারের সকল সদস্য, আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব ও শুভাকাঙ্খীদের কাছে অশেষ কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।’

আলোকিত চৌদ্দগ্রাম পরিবার

মো. এমরান হোসেন বাপ্পি

নির্বাহী সম্পাদক
মোবাইল: ০১৮১৯ ৯৯৬২৩৮

মো. বেলাল হোসাইন

বার্তা সম্পাদক
মোবাইল: ০১৮১৩ ০৬৫৭২৮

মুহা. ফখরুদ্দীন ইমন

প্রধান প্রতিবেদক
মোবাইল: ০১৮১৯ ৭৮৬০১২